liver; হজমের সমস্যা, হজমশক্তি বাড়ানোর জন্য কি কি খাবার খেতে হবে?

Liver; লিভার বা যকৃৎ আমাদের শরীরের সাবথেকে গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। লিভার আমাদের শরীরে খাদ্য পরিপাকের মাধ্যমে গ্লোকোজ সঞ্চয় করে রাখে,যা কাজ করার সময় শক্তি দিয়ে থাকে ।শরীরে থেকে দূষিত পদার্থ বের করে দেওয়া লিভেরের কাজ। শরীরে কার্য ক্ষমতা সক্রিয় রাখার জন্য লিভার সুস্থ রাখা অত্যান্ত প্রয়োজন। কিন্তু আমরা দিনের পর দিন অসাস্থ্যকর খাবার খেয়ে লিভারকে নষ্ট করে ফেলছি ।বর্তমানে আমরা ফেজাল খাবার ও স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকর খাবার খেয়ে কর্ম দক্ষতা হারাছি ও নানা রোগের সম্মুখীন হয়ে পড়ছি। অনেকে আবার অতিরিক্ত মদ্যপান করে শরীরে লিভারকে ক্ষতি করে থাকে। তাই লিভারকে সুস্থ্য সবল রাখার জন্য আমাদের খাওয়া-দাওয়া পরিবর্তন করে। সঠিক মাত্রায় শরীরে লিভারের পক্ষে উপকারি ফলমূল, নানা খাবার খেতে হবে।

liver; সুস্থ্য রাখতে কি কি খেতে হবে? 

সবুজ শাকসব্জি লিভারকে নানা রোগের হাত থেকে রক্ষা করে । শাক সবজিতে উচ্চ মাত্রাই ক্লোরোফিল থাকে যা রক্ত প্রাবাহ থেকে দূষিত পদার্থ শোষণ করে নেই। তাই আমাদের প্রতিদিন পরিমান মতো সবজি খেতে হবে।

লেবুতে রয়েছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি লিভারে বেশি করে এনজাইম তৈরি করে যা হজম শক্তির জন্য বেশি উপযোগী।

লেবুর আন্টিঅক্সিডেণ্ট উপাদান লিভার পরিস্কার রাখে এবং ডি লিমনেন উপাদান লিভারে এনজাইম সাক্রিয় করে।

লেবুর রস হালকা গরম জলের সাথে প্রত্যেকদিন সকালে খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়।।

আপেল পেক্টিন নামাক এক প্রকার উপাদান যা শরীরে নানা ধারনের দূষিত পদার্থ বর্জন করে লিভেরকে টক্সিন মুক্ত করে।

এছাড়া আপেলের মাধ্যে থাকা ম্যালিক অ্যাসিড ক্ষাতিকর বিষাক্ত পদার্থ অপসারান করে থাকে।

রসুন সেলেনিয়ম ও এলিসিন নামক উপাদান লিভারে সৃষ্টি করে টক্সিন মুক্ত রাখতে সাহায্য করে।

জাম্বুরা থাকায় ভিটামিন সি ও উচ্চমাত্রাই এন্টিঅক্সিডেণ্ট রোগ প্রতিরোধের পাশাপাশি লিভারকে সতেজ রাখে।

এর রস পান করলে ডিটক্সিনফিকেসন এনজাইম বৃদ্ধি পায় যা আমদের শরীর থেকে কার্সিনোজেন, অনান্য টক্সিনকে বের করে লিভারকে রোগ মুক্ত রাখে।

গ্রিন টি এন্টিঅক্সিডেণ্ট সমৃদ্ধ, এটিতে কেটেচিন নামক এক প্রকার উপদান রয়েছে যা লিভারকে নানা বিধ সমস্যা দূর করে থাকে।

কফি লিভার রক্ষা করে ও ক্ষতিগ্রস্ত লিভারকে সারিয়ে তুলতে সহায়তা করে। নিয়মিত কফি পান করলে লিভার ক্যানসারের সম্ভাবনা কমে যাবে।

error: Content is protected !!