Flood in Ghatal; শিলাবতীর নদীর জলে ভাসছে ঘাটাল

Flood in Ghatal: শিলাবতী নদীর জল ঢুকে পড়ে নদীর দুকেলের বিস্তীর্ন এলাকা প্লাবিত হয়ে হয়ে গেলো। মেদিনিপুরের ঘাটালের বন্যা পরিস্তিতি ক্রমশ খারাপ হয়ে চলেছে। ঘাটালের এলাকার বিস্তীর্ন অঞ্চলের রাস্তা-ঘাট এবং বাড়িঘর ডুবে গিয়েছে।

এমনকি এই শিলাবতি নদীর জলে ঘাটালের এস. ডি . ও অফিস জলের তলায়। এস. ডি . ও অফিসের একটি দেওয়াল ভেঙে যায়। ঘাটালের থানাসহ সাব জেলও জল ঢুকে পরেছে।

শিলাবতীর নদীর জলে ভাসছে ঘাটাল। কোথাও নদীর জলে ঘরবাড়ি ভাসছে,আবার কোথাও বাড়ীঘর ভেঙে তলিয়ে যাচ্ছে জলের তলায়।

বর্ষার অতিরিক্ত জলের ফলে বন্যা মানুষের জীবন বিপদময় করে তুলেছে। জলের তলে ডুবে মৃত হয় সেইদুল মির্জা নামে এক ব্যাক্তির।

এই বন্যার জলে সব রাস্তা দিয়ে জল প্রবাহিত হচ্ছে।রাস্তায় কোনো গাড়ী নেয় ঘাটালের যাতায়াত মাধ্যম হয়ে দারিয়েছে নৌকা।

নৌকার মাধ্যমে তাঁরা এক স্থান থেকে অন্য স্থানে যাতায়াত করেছে।

শিলাবতী নদীর জলে ভুসছে ঘাটাল 

এক নাগারে বৃষ্টিতে শিলাবতী নদির জলে পশ্চিম মেদিনিপুরের ঘাটাল এখন ব্যানভাসী। চারিদিকে শুধু জল আর জল । ১২ টি গ্রাম পঞ্চায়েত ও  পৌরসভার প্রায় ১৬ টি ওয়ার্ড  জলমগ্ন। ময়রাপুকুর শ্যামপুর ও রথিপুরে খোলা জলের স্রোত বয়ে চলছে ।

গত মানুষের ঘর বাড়ি হারিয়ে গেছে জলের তলায়। শিলাবতি নদীর জলে বিঘের পর বিঘে জমি জলের তলায় ডুবে গেছে।

ঘাটালসহ ব্যানবাসী এলাকাগুলিতে উদ্ধার ও ত্রানের জন্য এনডিআরএফ কে আনা হয়েছে। তাঁরা ইতিমধ্যেই বিভিন্ন অংচলের মানুষের উদ্ধার কাজে লেগে পরেছেন।

প্রশাসনের অধিকারকসহ সাধারন মানুষের দাবি, নদীর বৃষ্টির জল যদি ছাড়া তাহলে পরিস্তিতি আরো ভয়ংকর হবে।

শিলাবতী নদী ছাড়া আর অন্যান্য নদীগুলিতে জল ছাড়তে দেখা যাচ্ছে। ঘাটালসহ দুই মেদিনিপুরে পরিস্তিতি আরো সংকটময় হয়ে পড়ছে।

অনেকে আবার ট্রাক্টরে আশ্রয় নিতে দেখা গেছে তাদেরকে লোকজন খাবার দিলে তাঁরা খাচ্ছে।

রানাবাজার এলাকায় যেমন রাজ্য সড়ক প্লাবিত তার সাথে সাথে ঘর বাড়িও ডুবে গেছে।

অনেকের আবার ঘরের চালে উপর বসে আছে।তাদের খাবার সমস্যাতো হচ্ছেই এমনকি পানীয় জলের বিরাট সমস্যা দেখা যাচ্ছে।

বন্যার(flood) জল শুধু বয়ে চলেছে কোনটা চাষের জমি, কোনটা রাস্তা কিছুই বোঝা যাচ্ছে না চারিদিকে শুধু জল আর জল । যেখানে মানুষ চাষ করতেন সেখানে মাছ ধরছেন।

error: Content is protected !!